1. [email protected] : bbcpresss :
  2. [email protected] : Jahirul Siraj : Jahirul Siraj
রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:১৭ পূর্বাহ্ন

কোরআন তেলাওয়াত শুনলে আল্লাহর রহমত অবতীর্ণ হয়

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ
  • সময়ঃ মঙ্গলবার, ৩১ আগস্ট, ২০২১

পবিত্র কোরআন মহান আল্লাহর ঐশি বাণী। নিজে এর তিলাওয়াত করা সওয়াবের কাজ, তেমনি এর তিলাওয়াত শ্রবণ করাও সওয়াবের কাজ। মহানবী (সা.) কখনো কখনো সাহাবায়ে কেরামকে দিয়ে কোরআন তিলাওয়াত করাতেন এবং গভীর আগ্রহসহ তিলাওয়াত শুনতে পছন্দ করতেন। আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) আমাকে বলেন, ‘আমার কাছে কোরআন পাঠ করো।’ আমি বললাম, আমি আপনার কাছে কোরআন পাঠ করব, অথচ আপনার ওপর কোরআন অবতীর্ণ হয়েছে। তিনি বলেন, ‘আমি অন্যের তিলাওয়াত শুনতে পছন্দ করি।’ (বুখারি, হাদিস : ৫০৫৬)

নিম্নে কোরআনের তিলাওয়াত শোনার কিছু উপকারিতা তুলে ধরা হলো—

আল্লাহর রহমত পাওয়া যায় : যখন কোরআন তিলাওয়াত করা হয়, তখন মহান আল্লাহর রহমত অবতীর্ণ হয়। যারা মনোযোগসহ কোরআন তিলাওয়াত শোনে তাদের ওপরও রহমত অবতীর্ণ হয়। পবিত্র কোরআনে মহান আল্লাহ বলেন, ‘আর যখন কোরআন পাঠ করা হয় তখন তোমরা মনোযোগসহ তা শোনো এবং নিশ্চুপ হয়ে থাকো, যাতে তোমাদের প্রতি রহমত করা হয়।’ (সুরা : আরাফ, আয়াত : ২০৪)

আল্লাহর প্রশংসা পাওয়া যায় : যারা কোরআনের মজলিসে অংশগ্রহণ করে ভক্তি-শ্রদ্ধার সঙ্গে কোরআন তিলাওয়াত করে ও শোনে, মহান আল্লাহ ফেরেশতাদের মজলিসে তাদের প্রশংসা করেন। আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, মহানবী (সা.) বলেছেন, ‘যখন কোনো সম্প্রদায় আল্লাহর কোনো ঘরে সমবেত হয়ে আল্লাহর কিতাব তিলাওয়াত করে এবং পরস্পর তা নিয়ে আলোচনা করে, তখন তাদের ওপর শান্তি বর্ষিত হয়, তাদের আল্লাহর রহমত ঢেকে নেয়, ফেরেশতারা তাদের ঘিরে রাখে এবং আল্লাহ তাঁর নিকটবর্তী ফেরেশতাদের কাছে তাদের প্রশংসা করেন।’ (আবু দাউদ, হাদিস : ১৪৫৫)

হিদায়াতের পথ দেখায় : পবিত্র কোরআন মানুষকে হিদায়াতের পথ দেখায়। কোরআন মানুষের হৃদয়কে যেমন প্রশান্ত করে, তেমনি হৃদয়ের বক্রতা দূর করতেও এর কার্যকরী ভূমিকা রাখে। মহান আল্লাহ বলেন, ‘নিশ্চয়ই এ কোরআন হিদায়াত করে ওই পথের দিকে, যা সর্বশ্রেষ্ঠ (সরল, সুদৃঢ়) এবং সৎকর্মপরায়ণ মুমিনদের সুসংবাদ দেয় যে তাদের জন্য আছে মহাপুরস্কার।’ (সুরা : বনি ইসরাঈল, আয়াত : ৯)

অন্তরে নূর তৈরি করে : পবিত্র কোরআন মানুষের অন্তরকে শীতল করে। মানুষের অন্তরে হিদায়াতের নূর তৈরি করে। ফলে বান্দা মহান আল্লাহর কাছে তাওবা করে পাপ থেকে ফিরে আসে, যা তার আখিরাতকেও নূর দ্বারা আলোকিত করে। পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘হে ঈমানদাররা, তোমরা আল্লাহর কাছে তাওবা করো—খাঁটি তাওবা। আশা করা যায়, তোমাদের রব তোমাদের পাপ মোচন করবেন এবং তোমাদের এমন জান্নাতে প্রবেশ করাবেন, যার পাদদেশে নহর প্রবাহিত। নবী ও তার সঙ্গে যারা ঈমান এনেছে তাদের সেদিন আল্লাহ লাঞ্ছিত করবেন না। তাদের নূর তাদের সামনে ও ডানে ধাবিত হবে। তারা বলবে, হে আমাদের রব, আমাদের জন্য আমাদের আলো পূর্ণ করে দিন এবং আমাদের ক্ষমা করুন। নিশ্চয়ই আপনি সর্ববিষয়ে সর্বক্ষমতাবান।’ (সুরা : তাহরিম, আয়াত : ৮)

ঈমান বৃদ্ধি পায় : পবিত্র কোরআন এমন একটি বরকতময় কিতাব, যার তিলাওয়াত শোনার মাধ্যমে মুমিনের ঈমান বৃদ্ধি পায়। পবিত্র কোরআনে মহান আল্লাহ বলেন, ‘মুমিন তো তারা, আল্লাহর কথা আলোচনা করা হলে যাদের অন্তর প্রকম্পিত হয়। আর যখন তাদের কাছে আয়াত তিলাওয়াত করা হয়, তখন তা তাদের ঈমান বৃদ্ধি করে। আর তারা তাদের রবের ওপর নির্ভর করে।’ (সুরা : আনফাল, আয়াত : ৮)

সওয়াব পাওয়া যায় : আলেমদের মতে, কোরআন তিলাওয়াত করলে যেমন প্রতি হরফে ১০ নেকি পাওয়া যায়, তেমনি কোরআন তিলাওয়াত শুনলেও নেকি পাওয়া যায়। কেননা সুরা আরাফের ৪ নম্বর আয়াতে মহান আল্লাহ কোরআন তিলাওয়াত করা হলে তা মনোযোগসহকারে শোনার নির্দেশ দিয়েছেন এবং চুপ থাকতে বলেছেন। রাসুল (সা.)-ও মাঝেমধ্যে সাহাবায়ে কেরাম থেকে কোরআন শোনার প্রমাণ আছে। তবে রেকর্ডকৃত কোরআন তিলাওয়াত শুনলে নির্ভরযোগ্য আলেমদের মতে সওয়াব হবে না। (ফাতাওয়ায়ে ফকীহুল মিল্লাত : ২/১০৪)

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এইরকম আরো খবর
September 2021
M T W T F S S
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
28293031  
© ২০২১ | বিবিসি প্রেস © সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | bbcpress.com
Theme Customized BY LatestNews