আজ: শুক্রবার | ৭ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৪শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ২৫শে রমজান, ১৪৪২ হিজরি | রাত ৯:১৪
শিরোনাম: সোনারগাঁয়ে লন্ডন প্রবাসীর পক্ষ থেকে দুস্থদের মধ্যে নগদ অর্থ বিতরণ     বন্দরে কৃষি জমির মাটি কেটে তৈরী করছে গভীর পুকুর,প্রশাসনের ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ     সোনারগাঁয়ে ইঞ্জিনিয়ার মাসুম এক অসহায়কে নগদ অর্থ প্রদান করলেন     সোনারগাঁয়ে ছিনতাইকারিদের ছুরিকাঘাতে অটোরিক্সা চালক আহত     সোনারগাঁওয়ে গ্রাম পুলিশের মাঝে সাইকেল হিজরাদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ     কুষ্টিয়ায় মেছো বাঘ উদ্ধার     বন্দরে যৌতুক না পেয়ে নববধূ বিতারিত     বন্দরে জালনোটসহ জনতা কর্তৃক আটক-১     কলার থেকেও শতগুণ বেশি উপকারী খোসা!     স্বামী ও ভাসুরের নির্যাতন সইতে না পেরে বন্দরে ২ সন্তানের জননী আত্মহত্যা    
সংবাদ দেখার জন্য ধন্যবাদ

সোনারগাঁয়ে হেফাজতের ভাংচুর মামলায় এক সাংবাদিককে আসামী করায় সাংবাদিকদের প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত

১৩ এপ্রিল, ২০২১ | ৯:৪৯ অপরাহ্ণ | bbc press | 66 Views

বিবিসি প্রেসঃ নারায়ণগঞ্জ সোনারগাঁও রয়েল রিসোর্টে মাওলানা মামুনুল হক কান্ডের জেরে সোনারগাঁও আওয়ামী লীগের অফিস, থানা যুবলীগের সভাপতির বাসা ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুর মামলায় দৈনিক আজকের আলোকিত সকাল পত্রিকার জেলা প্রতিনিধিকে আসামি করায় সোনারগাঁওয়ে সাংবাদিকরা এক প্রতিবাদ সভা করেছেন। এসময় সাংবাদিকরা বলেন, দৈনিক আজকের আলোকিত সকাল পত্রিকার নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি মোঃ কবির হোসেনের মিথ্যা মামলা অনতিলম্বে প্রত্যাহার করা হোক। অন্যতায় বৃহত্তর আন্দোলনে ঘোষণা দেন তাঁরা।

নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি মোহাম্মদ কবীর হোসেন তাদের বাড়ির মসজিদে মাগরিবের নামাজ আদায় করে রয়েল রিসোর্টে সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে হেফাজতে ইসলামের তান্ডবের ভাংচুর ইটপাটকেল নিক্ষেপ দেখে ভয়ে জীবন রক্ষার্থে পালিয়ে আসে।
সাংবাদিক কবীরের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সকল সাংবাদিক যেভাবে দায়িত্ব পালন করতে গিয়েছে আমিও গিয়েছি। গেইটে দিয়ে কার্ড দেখিয়ে প্রবেশ করেই নিউজ সোনারগাঁও ডটকম এর সাংবাদিক ফরিদের সাথে দেখা হয়। ফিরে আসার সময় দৈনিক কালেরকন্ঠে সোনারগাঁও প্রতিনিধি গাজী মোবারকের সাথে দেখা হয়। সেখান থেকে ফিরে এসে আমি শাপলা হোটেলে রাত এগারোটা পর্যন্ত ডিউটি করি। রেষ্টুরেন্টের সিসি ক্যামেরার ফুটেজ রয়েছে। তাছাড়া এসব নৈরাজ্য মানসিকতার লোক আমি নই।
আপনাকে কেন মামলায় জড়ালো? জানতে চাইলে কবীর হোসেন বলেন, কার যেন একটা পোস্টের শেয়ার দিয়েছিলাম সেটাই কোড করেছে শুনেছি। অবশ্য আমার বন্ধু ছগীর আহমেদ আমাকে ফোন করে রিমুভ করতে বললে আমি দ্রুত শেয়ার ডিলিট করে ফেলি। সেখানে ঐ পোস্টে কারো নাম উল্লেখ ছিলো না।
সাংবাদিক কবীর হোসেন বলেন, কেউ হয়তো অন্য কোন উদ্দেশ্য আমার নাম দিয়েছে। আমি আওয়ামী লীগের লোকজনের পক্ষে কাজ করছি। এর আগে পৌরসভার মেয়র নির্বাচনে নৌকার পক্ষে করেছি এবং উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচনে নৌকার পক্ষে কাজ করেছি। বর্তমানেও কাজ করছি আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশি ছগীর আহমেদের পক্ষে।
আওয়ামী লীগের, যুবলীগের, ছাত্রলীগের, কৃষক লীগের তথা আওয়ামী লীগের অংগ সংগঠনের অনেকের সাথে আমার ভালো সম্পর্ক রয়েছে ।

এই ধরনের হয়রানি মূলক মিথ্যা মামলায় এমন অনেকের নাম দিতে গিয়ে প্রকৃত অপরাধী রয়ে যাবে ধরা ছোঁয়ার বাহিরে। আমরা চাই প্রকৃত অপরাধীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হোক, যারা অপরাধের সাথে জড়িত না তাদের নাম প্রত্যাহার করা হোক।





Comment Heare

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »