মানিকগঞ্জের শিবালয় উপজেলার যমুনা নদীর দুর্গম চরাঞ্চল আলোকদিয়ায় নির্মাণ হচ্ছে মুজিবকিল্লা।

অবহেলিত ও বিস্তৃর্ণ-বিচ্ছিন্ন এই চরাঞ্চলে মুজিবকিল্লা নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হলে এলাকার হাজারো মানুষ বন্যা, ভাঙ্গন, ঝড়-বৃষ্টি ও প্রাকৃতিক দুর্যোগে সেখানে আশ্রয় নিতে পারবে।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে তিনতলা বিশিষ্ট মুজিবকিল্লা নির্মাণ কাজ শুরু হওয়ায় চরবাসীর মধ্যে বিরাজ করছে বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনা।

প্রায় ৬ কোটি টাকা ব্যয়ে এই মুজিবকিল্লায় নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হলে অবহেলিত চরাঞ্চলের হাজারো মানুষজন প্রাকৃতিকসহ নানা ধরনের দুর্যোগে পরিবার পরিজন, গবাদি পশু নিয়ে এখানে আশ্রয় নিতে পারবে।

স্থানীয় তেওতা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল কাদের বলেন, সংসদ সদস্য এএম নাঈমুর রহমান দুর্জয়ের প্রচেষ্টায় অবহেলিত চরবাসী পেতে যাচ্ছেন মুজিবকিল্লা। নদী ভাঙ্গনে দিশেহারা মানুষ গুলোর জন্য এই কিল্লা স্বপ্নের মতো। অবহেলিত ও উন্নয়ন বঞ্চিত চরাঞ্চলে মুজিব কিল্লা নির্মান কাজ শুরু হওয়ায় তারা খুশি। চরের চারিদিকে যমুনা নদী আর নদী ভাঙ্গনে তারা দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। এই কিল্লা নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হলে দুযোর্গে তারা মাথা গোজার আশ্রয় খুজে পাবেন।

মানিকগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য এএম নাঈমুর রহমান দুর্জয় বলেন, নদী ভাঙ্গনকবলিত ও বিস্তৃর্ণ-বিচ্ছিন্ন এই চরাঞ্চলে যখন বন্যা আসে এবং ভাঙ্গন শুরু হয় তখন নদীতে অনেক বাড়ি ঘর বিলিন হয়ে যায়। বাধ্য হয়ে তারা তখন রাস্তাঘাটসহ বিভিন্ন জায়গায় অবস্থান নেন।

প্রাকৃতিক দুর্যোগে মানুষের দুঃখ দুর্দশা লাঘবে মুজিব কিল্লা নির্মাণে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশের বিভিন্ন অবহেলিত অঞ্চলের জন্য এই ধরনের একটি প্রকল্প হাতে নিয়েছেন। আমরা সৌভাগ্যবান প্রাধানমন্ত্রীর কাছ থেকে আলোকদিয়ার মতো দুর্গম চরাঞ্চলের জন্য এই ধরনের একটি প্রকল্প পেয়েছি।

সূত্রঃ যুগান্তর

Translate »